এবারের ভালোবাসা দিবসে ভীষণভাবে সঙ্গী দরকার যে প্রাণীটির

তার নামটি রোমিও। কিন্তু শেকসপিয়ারের সেই রোমিওর মতো প্রেমিক কিছুতেই হয়ে উঠতে পারছে না সে। দশটি বছর ধরে কাটিয়ে যাচ্ছে নিঃসঙ্গ জীবন। কিন্তু একটা সঙ্গী খুব করে দরকার বলিভিয়ার এই ব্যাঙটির। কারণ দ্রুত একজন সঙ্গী খুঁজে না পেলে পৃথিবীর বুক থেকে হারিয়ে যাবে পুরো প্রজাতিটিই। রোমিও তার প্রজাতির শেষ ব্যাঙ!

দশ বছর ধরে ব্যাচেলর হিসেবে কাটিয়ে দেওয়া এই ব্যাঙটির জুলিয়েটের সন্ধান পেতে এখন মানুষের সহায়তা খুবই প্রয়োজন। যদি না পাওয়া যায়, তবে পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাবে এই প্রজাতির ব্যাঙটি। কোচাবাম্বা ন্যাচারাল হিস্টোরি জাদুঘরে একটি পাত্রে রাখা এই ব্যাঙ সঙ্গিনী খুজতে বিফলে ডাক ছেড়ে যাচ্ছে কয়েক বছর ধরে।

বন্যপ্রাণী সংরক্ষন সংস্থার একজন বিজ্ঞানী আর্টুরো মুনোজ বলেন, “আমরা চাইনা সে আশা ছেড়ে দিক”। এজন্য সংস্থাটি একটি ডেটিং ওয়েবসাইটে তার নামে প্রোফাইল খুলে অর্থ সংগ্রহ করার চেষ্টা করছেন, যাতে ব্যাঙটি আশাহত না হয়। এই অর্থ দিয়ে বলিভিয়ার ঝর্না ও নদীর আশেপাশের এলাকাগুলোতে আরেকটি “সেহুনিকাস ওয়াটার ফ্রগ” খুজে বের করার জন্য অভিযান চালানো হবে। এমনকি ব্যাঙাচি অবস্থায় পেলেও তা সংগ্রহ করা হবে।

মুনোজ বলেন, “আমরা এখনো আশাবাদী যে এই প্রজাতির আরো ব্যাঙ আছে। আমরা এগুলো সংগ্রহ করে এই জাতটিকে বিলুপ্তির হাত থেকে বাঁচাতে চাই”।

যদি নিঃসঙ্গ অবস্থাতেই রোমিও মারা যায়, তবে সে “লোনসম জর্জ” এর পথেই হাটবে। জর্জ নামের নিঃসন্তান এক কচ্ছপ ২০১২ সালে মারা গিয়েছিলো, মৃত্যুর সাথে সে নিয়ে চলে গিয়েছে তার সমগ্র জাতের অস্তিত্ব। সেহুনিকাস ওয়াটার ফ্রগ গড়ে ১৫ বছর বাঁচে। তাই  ধরে নেওয়া হচ্ছে রোমিওর হাতে আর বেশি সময় অবশিষ্ট নেই।

রোমিওকে নিয়ে এই প্রচারনার লক্ষ্য হলো ভালোবাসা দিবসের আগে ১৫ হাজার মার্কিন ডলারের একটি ফান্ড সংগ্রহ করা। সেজন্য রোমিওর একটি প্রোফাইলও খোলা হয়েছে একটি ডেটিং ওয়েবসাইটে।

সেখানে একটি পরিচিতির ভিডিওতে তাকে দেখা যাবে সাঁতার পারদর্শিতা দেখাতে। সেখানে স্প্যানিশ ভঙ্গিমায় ইংরেজী ভাষায় আকর্ষনীয় কন্ঠে বলা হয় “হাই, আমি রোমিও, বলিভিয়ার একটি সেহুনিকাস ওয়াটার ফ্রগ। আমি একজন অতি সাধারণ ব্যক্তি। আমি নিজের মতো করে থাকতে পছন্দ করি এবং রাতে বাড়িতেই থাকি। আমি খেতে খুব ভালোবাসি, কে বাসেনা?”

ভিডিওটিতে তার মোবাইল ফোনের প্রোফাইলও দেখানো হয়েছে, যেখানে দেখা যায় বড় বড় চোখওয়ালা কার্টুন একটি ব্যাঙ খুব আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে তাকিয়ে আছে আর বলছে “জুলিয়েটের সন্ধান চাই”।

রোমিওর প্রোফাইলের তথ্য তালিকায় রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসের জায়গায় লেখা “কখনো বিয়ে করিনি” এবং সন্তানের ঘরে লেখা “নেই”।

ঘোষনার ভিডিওতে আরো বলা হয়, “আপনারা হয়তো ভাবছেন, এমন একটি ওয়েবসাইটে আমার মতো একটি ব্যাঙ কি করছে? আসলে আপনার মতো আমিও এখানে প্রেমের সন্ধানে এসেছি। কিন্তু আপনার চেয়ে আমার প্রয়োজনটা একটু বেশি জরুরি”।

মুনোজ জানান, তারা যখন ১০ বছর আগে রোমিওকে খুজে পেয়েছিলেন, তারা জানতেন বলিভিয়ার অন্যান্য উভচর প্রানীর মত রোমিও রয়েছে হুমকিতে। কিন্তু এতদিনে যে আর একটিও পাওয়া যাবেনা, তা ভাবিনি আমরা। সে নিরাপদে আছে কিন্তু বছর বছর সঙ্গিনীর জন্য ডেকে চলেছে। অন্যান্য ব্যাঙ এর চেয়ে রোমিওর ডাক নাকি একটু সুরেলা, এমনটাই বলছেন মুনোজ। রোমিওর কল্যানে জীববিজ্ঞানীরা তার জাত সম্পর্কে আরো জানতে সক্ষম হয়েছেন।

এটি একটি লাজুক স্বভাবের ব্যাঙ। কোন একটা পাথরের আড়ালে লুকিয়ে থাকতে পছন্দ করে। কেবলমাত্র খাওয়ার সময় তার দেখা মেলে। তার পছন্দের খাদ্য তালিকায় রয়েছে কেঁচো এবং শামুক।

যদি পর্যাপ্ত অর্থ পাওয়া যায়, তাহলে বিজ্ঞানীরা কমপক্ষে ১০টি অভিযান চালাতে চান এই প্রজাতির আরেকটি ব্যাঙ খুজে পেতে। তাছাড়া এদের ডিএনএ এর খোজও চলবে ঝর্না ও নদীর আশেপাশে।

বিলুপ্তপ্রায় এই ব্যাঙ এর সংরক্ষনে যদি সঙ্গী না পাওয়া যায়, তাহলে মুনোজ এটিকে ক্লোন করানোর কথা ভাবছেন। জলবায়ু পরিবর্তন, বসতি সংকট, নতুন সব শিকারী প্রাণীর আবির্ভাব ও ফাংগাস সংক্রমনের ফলেই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে এই প্রজাতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*