মহাসাগরের উষ্ণতা বৃদ্ধিতে কমে যাচ্ছে মাছের পরিমাণ

একটি নতুন গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, জলবায়ুর পরিবর্তনের ফলে সমুদ্রে মাছের পরিমাণের উপরে ব্যাপক প্রভাব পড়ছে। বিজ্ঞানীরা আরো বলছেন যে, অতিরিক্ত মৎস্য আহরন, বিশেষ করে জাপানের নিকটবর্তী সামুদ্রিক এলাকা থেকে অতিরিক্ত মাছ তোলার ফলে সমুদ্রে মাছের পরিমাণ ৩৫ শতাংশেরও বেশি কমে গিয়েছে।

এই গবেষণার প্রধাণ লেখক ও ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার ইকোলজিস্ট ক্রিস ফ্রী বলেন, “মাছের উপরে এরই মধ্যে বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাব দেখে আমরা বেশ অবাক হয়েছি”।

গবেষকেরা ৩৮টি সামুদ্রিক অঞ্চলের ২৩৫ ধরণের মাছ ও ঝিনুকের জাতের উপরে গবেষনা চালিয়েছেন। ১৯৩০ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত সেসব মাছের সংখ্যার তারতম্য ছিলো ৪%। ২০১৬ সালে সমুদ্র থেকে ১৭১ মিলিয়ন টন মাছ আহরন করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে আগামী দশ বছরে সে সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে ২০১ মিলিয়ন টন-এ।

সার্বিকভাবে সমুদ্রে উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে কিছু স্থানে ৮% মাছ ও ঝিনুক কমে গিয়েছে। তবে কিছু কিছু স্থানে ৪% বেড়েছে তাদের অস্তিত্ব।

জানানো হয়েছে যে, উষ্ণতর পানিতে মাছের হজমের সমস্যা সৃষ্টি হয়। যার ফলে খাদ্য সংক্রান্ত সমস্যায় পড়ে অনেক প্রজাতি। তাছাড়া তাদের বংশবৃদ্ধিতেও বিঘ্ন ঘটে। এছাড়া পানিতে জুপ্লাংকটনের পরিমাণ কমে যাওয়ায় অনেক মাছ খাবার পায়না।

বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন যেন মাছের বংশবিস্তারের বিষয়টি আরো যত্নের সাথে দেখা হয়। তারা জানান ১২৪টি এমন প্রজাতির মাছ ও ঝিনুক আছে যেগুলো উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে সরাসরি প্রভাবিত হচ্ছে। গত ৮০ বছর ধরে তারা ধীরে ধীরে হারাচ্ছে জনসংখ্যা। তাছাড়া বিশ্বে প্রায় ৩ বিলিয়ন মানুষের আমিষের প্রধান উৎস মাছ। তাই খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাছ মারা হচ্ছে অবাধে। আরো একটি গোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস মাছ ধরা ও তা বাজারজাত করা, ফলে তারা আয় বৃদ্ধি করতে মাছ মারছেন ব্যাপক আকারে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন সমুদ্রের উষ্ণতা আধা ডিগ্রী সেলসিয়াস বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন থেকে সতর্ক না হলে ভবিষ্যতে মাছের অনেক জাত বিলীন হয়ে যাবে।

সূত্র: Study: Warming Oceans Cause Fish Decline As High as 35%