পেরুতে আকাশ থেকে পড়া গোলাকার ধাতব বস্তুকে ঘিরে রহস্য!

আকাশ থেকে জ্বলন্ত গোলাকার কিছু বস্তু নেমে এসেছে পেরুর এক এলাকায়। রহস্যজনক এসব বস্তুগুলো যখন মাটিতে পড়লো, তারপর থেকে আতংকে দিন কাটাচ্ছে পেরুর মানুষজন।

পেরুর আন্দিয়ান প্রদেশের লারানকাহুয়ানি এলাকায় গত ২৭ জানুয়ারী তিনটি গোলাকার বস্তু আঘাত হানলে সেখানকার বাসিন্দারা উল্কার আঘাতের ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন। ঐদিন ঘটনার আগে সোশাল মিডিয়াগুলোতে আকাশে কিছু জ্বলন্ত বস্তুর ধেয়ে আসার ছবি ও ভিডিও নিয়ে বেশ আলোচনা হয়। সেসব ভিডিওতে দেখা যায়, বিরাট এক আগুনের গোলা আকাশ ফুড়ে ধেয়ে আসছে টিঙ্গো মারিয়া ও পুকাল্লাপা শহরের মধ্যবর্তী এলাকায়।

কিন্তু গত মঙ্গলবার পেরুর বিমানবাহিনী জানিয়েছে, এই বস্তু আসলে মহাকাশ থেকে ফিরে আসা এসএল-২৩ নামক একটি রকেট এবং তিনটি ধাতব বস্তু হলো স্যাটেলাইটের জ্বালানীর ট্যাংক।

পেরুর লোকজন অবশ্য ভেবেছিলো এটি কোন এক উল্কাপিন্ডের আঘাত। এই আগুনের গোলা পেরু ছাড়াও ব্রাজিলের এক্র প্রদেশ থেকে দেখা গিয়েছিলো।

ব্রাজিলের ক্রুজিরো দো সুল মফস্বলের দমকল বাহিনীর প্রধান রোমুলো ব্রারোস বলেন, “আমাদের স্থানীয় ন্যাভিগেশন সেন্টার ধারণা করেছিলো এগুলো উল্কা। এই বস্তুগুলো এক্র এবং পেরুর সীমানার মধ্যবর্তী এলাকায় এসে পড়েছে। এই সময়ে সেখানকার আকাশে কোন আন্তর্জাতিক বিমান ছিলোনা”।

‘ইউনিভার্সেদাদে ফেডেরাল দো এক্র’ নামক বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহবিদ আলেজান্দ্রো ফনেস্কা অবশ্য জানান, ঐ এলাকায় উল্কাপিন্ডের আঘাতের কোন পূর্বলক্ষণ ছিলনা। এগুলো মহাকাশ থেকে পতিত মানুষের তৈরি কোন বস্তুই হবে। যেমন, পুরাতন কোন স্যাটেলাইট।

তিনি বলেন, “এইসব বস্তু যখন আমাদের বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করে, তখন এর গতি অনেক বেড়ে যায় এবং এগুলোর গায়ে আগুন ধরে যায়। পেরুতে যা ঘটেছে তার ব্যাখ্যা সম্ভবত এটিই”।