‘অভিনন্দন’, ‘বালাকত’, ‘পুলওয়ামা’: “দেশাত্মবোধক” চলচ্চিত্রের শিরোনাম নিয়ে লড়ছে বলিউড

সহকারীর দিকে তাকিয়ে মধ্য বয়সী বলিউড প্রযোজক বললেন, “পুলওয়ামাঃ দ্য ডেডলি এটাক”- ‘কেমন লাগলো?’। জবাবে সহকারী জানালেন, “আরেকটি লিখুন- পুলওয়ামা এটাক ভার্সেস সার্জিকাল স্ট্রাইক্স ২.০”। তিনি দ্রুত আরো বললেন, “আপনাকে দীর্ঘ শিরোনাম দিতে হবে, পুলওয়ামা, সার্জিকাল স্ট্রাইক কিংবা বালাকত এর মত ছোট শিরোনামের দিন শেষ”।

ভারত আর পাকিস্তানের এই চলমান ‘যুদ্ধের’ মাঝে বেশিরভাগ ভারতীয় যখন প্রার্থনা করছেন যেন তাদের এয়ার ফোর্স পাইলট অভিনন্দন ভার্তামান সুস্থভাবে ফিরে আসেন, সেখানে বলিউড চেষ্টা চালাচ্ছে দ্রুত এই ঘটনাকে পুজি করে বাণিজ্যিক চলচ্চিত্র বানিয়ে ফেলতে।

ফেব্রুয়ারি মাসের ২৬ তারিখে ভারত বিমান হামলা চালায় পাকিস্তানে। এই দিনটি বলিউডের চলচ্চিত্র অফিসগুলোতেও যেন এক অস্বাভাবিক ব্যস্ততার দিন ছিলো। পশ্চিম মুম্বাইয়ের আন্ধেরিতে ইন্ডিয়ান মোশন পিকচারস প্রোডিউসারস এ্যাসোসিয়েশন (আইএমএমপিএ)-তে কমপক্ষে পাচজন প্রযোজক এসেছেন সেদিন একটি করে চলচ্চিত্রের শিরোনামের রেজিস্ট্রেশন করতে। সেই শিরোনামের উপর ভিত্তি করে পরবর্তীতে চলচ্চিত্র নির্মাণ করবেন তারা।

সেখানে উপস্থিত একজন ব্যক্তি সেই ঘটনাকে ‘খিচুড়ি’ এর সাথে তুলনা করে বলেন, “আলোচনার এক পর্যায়ে তারা নিজেদের মধ্যে আলাপ করতে লাগলেন, একেকটি নামের মধ্যে কিভাবে নতুনত্ব আনা যায় তা নিয়ে পরামর্শ বিনিময় করতে লাগলেন”।

‘উড়িঃ দ্য সার্জিকাল স্ট্রাইক’ এর সাফল্যের ধারাবাহিকতায় ভারত-পাকিস্তান দ্বন্দের আলোকে শিরোনামের ছড়াছড়ি, এমনটাই দেখা গেলো ফেব্রুয়ারির সেই দিনে। এর মধ্যে যে শিরোনামগুলি নিশ্চিত হয়েছে তার মধ্যে আছে বিক্রম মলহোত্রার আবান্ডানশিয়া এন্টারটেইনমেন্টের ছবি জোশ এবং হাও ইস দ্য জোশ।

১৪ ফেব্রুয়ারির হামলায় পুলওয়ামায় যখন সিআরপিএফ এর ৪৯ জন জওয়ান মারা গেলেন, ঐ দিনই নিবন্ধিত হয়েছে পুলওয়ামা পুলওয়ামাঃ দ্য সার্জিকাল স্ট্রাইক, ওয়ার রুম, হিন্দুস্তান হামারা হে, পুলওয়ামা টেরর এটাক, দ্য এটাকস অফ পুলওয়ামা, উইথ লাভ ফ্রম ইন্ডিয়া এবং এটিএস- ওয়ান ম্যান শো এর মত সব শিরোনাম।

আইএমএমপিএ-এর একজন প্রতিনিধি গত ২৭ ফেব্রুয়ারি জানান যে, পুলওয়ামা হামলাকে ঘিরে অজস্র চলচ্চিত্রের শিরোনাম নিবন্ধনের আবেদনপত্র জমা পড়েছে। এর মধ্যে এবান্ডানশিয়া এবং টি-সিরিজ এর বেশ কিছু আবেদনপত্র আছে।

বলিউডের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী একটি চলচ্চিত্র রেজিস্ট্রেশনের জন্য প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানকে একটি ফর্ম পুরণ করতে হয় যেখানে তাদেরকে ৪-৫ টি বিকল্প নাম উল্লেখ করতে হয় এবং ফর্মটি জমা দেওয়ার সময় সাথে ২৫০ রুপী জমা দিতে হয়। সাথে আরো দিতে হয় ১৮% জিএসটি। এমন কম খরচের কারণে অনেকসময় দেখা যায় চলচ্চিত্র বা টিভি সিরিজ বানাক আর না বানাক অনেকেই আবেদন করে কোন একটি নাম নিবন্ধন করিয়ে রেখে দেয়। তারা পরবর্তীতে সেই নিবন্ধিত নামটি  বড় কোন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে থাকে।

সেখানে প্রযোজকদের সাথে আলাপে যা বোঝা যায় তা হলো, চলচ্চিত্রের শিরোনামে তারা যেভাবে সম্ভব সকল কীওয়ার্ড ঢুকিয়ে দিতে চান, যেমন- পুলওয়ামাঃ দ্য ডেডলী এটাক। প্রযোজক বলেন, “পুলওয়ামা কথাটি বড় করে লিখে বাকিটুকু ছোট ফন্টে লিখে দিন, ব্যস, হয়ে গেলো। নিট বুদ্ধি, কি বলেন?”

পাকিস্তানে বন্দী আইএএফ পাইলট অভিনন্দন ভার্তামান এর ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পরদিন সকালেই আইএমপিপিএ-এর অফিসে খোঁজ নেওয়া হয় যে, অভিনন্দন অথবা উইং কমান্ডার অভিনন্দন নামের কোন শিরোনাম নিবন্ধিত হয়েছে কিনা। ওপার থেকে জবাবে বলা হয়, এখনো হয়নি তবে দ্রুত আবেদনপত্র জমা না দিলে অন্য কেউ নিয়ে নিবে।

সূত্র: ‘Abhinandan’, ‘Balakot’, ‘Pulwama’: Bollywood Producers Fight To Register “Patriotic” Movie Titles